ভুট্টায় ব্যাপক সম্ভাবনা

মিজান রাহমান ॥ 

দেশে গত কয়েক বছরে ভুট্টার ফলন ও উৎপাদনশীলতা বেড়েছে। এখন হেক্টরপ্রতি ৯ দশমিক ৭৪ টন ভুট্টার ফলন হচ্ছে, যা বিশ্বে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। হেক্টরপ্রতি সবচেয়ে বেশি ফলনের রেকর্ড তুরস্কের। দেশটিতে ভুট্টার ফলন হেক্টরে সাড়ে ১১ টন হয়। অন্যান্য ফসলের চেয়ে ভুট্টার ফলন বেশি হওয়াতে কৃষকরা ধান ও গমের পাশাপাশি ভুট্টা চাষ বাড়িয়েছেন। পাঁচ বছর আগে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে দেশে ভুট্টার উৎপাদন হয়েছিল ২৭ লাখ টন। যা গত ২০২০-২১ অর্থবছরে এসে দাঁড়ায় সাড়ে ৫৬ লাখ টনে, যা দ্বিগুণেরও বেশি। দেশে বর্তমানে সাড়ে পাঁচ লাখ হেক্টর জমিতে এখন ভুট্টার আবাদ হচ্ছে। সরকার এখন ভুট্টা থেকে প্রক্রিয়াজাত খাদ্য তৈরিতে গুরুত্ব দিচ্ছে। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য জানা গেছে।  
তারা বলেছেন, দেশে-বিদেশে ভুট্টার চাহিদা আছে। প্রক্রিয়াজাত খাদ্য, ভোজ্যতেল, উন্নতমানের আটা ও বিস্কুট জাতীয় খাবার হয় ভুট্টা থেকে। এসব মিলিয়ে ভুট্টা চাষে রয়েছে বাণিজ্যিক সম্ভাবনা। এছাড়া ভুট্টায় মিটতে পারে খাদ্য চাহিদা ও ঘাটতি। 
ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউটের তথ্য বলছে, পাঁচ বছর আগে ২০১৫-১৬ অর্থবছরে দেশে ভুট্টার উৎপাদন হয়েছিল ২৭ লাখ টন। যা গত ২০২০-২১ অর্থবছরে এসে দাঁড়ায় সাড়ে ৫৬ লাখ টনে। দেশে বর্তমানে সাড়ে পাঁচ লাখ হেক্টর জমিতে ভুট্টার আবাদ হচ্ছে। দেশে গত কয়েক বছরে ভুট্টার উৎপাদনশীলতা বেশ বেড়েছে। এখন হেক্টরপ্রতি প্রায় ৯ দশমিক ৭৪ টন ভুট্টার ফলন হচ্ছে, যা বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। হেক্টরপ্রতি সবচেয়ে বেশি ফলনের রেকর্ড তুরস্কের। সেখানে হেক্টরে সাড়ে ১১ টন ভুট্টার ফলন হয়। দেশে এখন হেক্টরপ্রতি প্রায় ৯ দশমিক ৭৪ টন ভুট্টার ফলন হচ্ছে। 
তথ্য বলছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশে ২১৭ কোটি টাকার ভুট্টার হাইব্রিড বীজ আমদানি হয়েছে। পাশাপাশি দেশি কিছু কোম্পানিও বীজ বিক্রি করছে। এছাড়া প্রতি কেজি ১৫ টাকা হিসাবে দেশে উৎপাদিত ভুট্টার মূল্য প্রায় ৮ থেকে ৯ হাজার কোটি টাকা। বাকিটা খাদ্য প্রক্রিয়াকরণসহ ভুট্টা আমদানি-রপ্তানি ও অন্যান্য কার্যক্রমে যুক্ত। সরকারও এখন ভুট্টা থেকে প্রক্রিয়াজাত খাদ্য তৈরিতে গুরুত্ব দিচ্ছে। খাদ্যশিল্পে ভুট্টা ব্যবহারের প্রচুর সুযোগ রয়েছে। দেশে প্রচুর কর্নফ্লাওয়ার, স্টার্চ প্রয়োজন হয়, সেটা আমদানি করা হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, দেশের প্রাণিখাদ্যের বাজার এখন ভুট্টার ওপর নির্ভরশীল। মাছ, গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির উৎপাদন বাড়ায় ভুট্টার খাবারের চাহিদাও বাড়ছে। দেশের শতাধিক কোম্পানি এসব খাদ্য প্রস্তুত করছে। পাশাপাশি ভুট্টা চাষ, মানুষের বিভিন্ন খাদ্য তৈরি, আমদানি-রপ্তানি প্রক্রিয়াজাতসহ সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াকরণে যুক্ত হচ্ছে অসংখ্য মানুষ। সব মিলিয়ে দেশে এখন ভুট্টার বড় কারবার চলছে। 
জানা গেছে, এরই মধ্যে দেশের অন্যতম শিল্পপ্রতিষ্ঠান নাসির গ্রুপ ভুট্টা থেকে স্টার্চ তৈরির কারখানা করেছে। আরো একটি গ্রুপ এরই মধ্যে কারখানা করার প্রস্তুতি নিয়েছে। এ দুটি গ্রুপপের পাশাপাশি বিভিন্ন ছোট-বড় কোম্পানি ভুট্টা থেকে মানুষের খাদ্য তৈরিতে বিনিয়োগে যাচ্ছে। 
এ বিষয়ে বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক (চলতি দায়িত্ব) ড. মো. আমিরুজ্জামান বলেন, সরকারও এখন ভুট্টা থেকে প্রক্রিয়াজাত খাদ্য তৈরিতে গুরুত্ব দিচ্ছে। খাদ্যশিল্পে ভুট্টা ব্যবহারের প্রচুর সুযোগ রয়েছে। দেশে প্রচুর কর্নফ্লাওয়ার, স্টার্চ প্রয়োজন হয়, সেটা আমদানি করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বড় বড় বিনিয়োগকারীরাও আগ্রহ দেখাচ্ছে। এরই মধ্যে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আগামীতে খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ বাড়ানো হলে দেশে প্রচুর ভুট্টা লাগবে। আমরা উৎপাদন সেই হারে বাড়াতে কাজ করছি। 
দেশে গ্রীষ্ম ও শীত দুই মৌসুমে ভুট্টা চাষ হয়। তবে মোট উৎপাদনের ৮৭ শতাংশই হয় শীত মৌসুমে। কিন্তু দেশে ভুট্টার চাহিদা থাকে সারা বছর। পাল্লা দিয়ে দিন দিন চাহিদা বাড়ছে। সারা বছরে শস্যটির চাহিদা থাকে ৭০ লাখ টনের বেশি। ভুট্টা চাষের পর সেই জমিতে আবার পাটের আবাদ করা হচ্ছে। অন্যান্য ফসলের তুলনায় ভুট্টা চাষে খরচ ও পরিশ্রম কম। 
প্রাণিখাদ্য তৈরির প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, দেশে প্রাণিখাদ্যের বাজার বছরে ১৫ শতাংশ হারে বাড়ছে। প্রাণিখাদ্য তৈরির বড় অংশই ভুট্টা থেকে আসে। এর মধ্যে মুরগির খাদ্য তৈরিতে ৫৫ শতাংশ ভুট্টার দরকার হয়। এ হার গবাদিপশুর খাদ্যে ৩০ শতাংশ এবং মাছের ক্ষেত্রে ১২ থেকে ১৫ শতাংশ। শুধু এ তিন খাতে বছরে ৪৫ লাখ টন ভুট্টার চাহিদা রয়েছে। 
নতুন সম্ভাবনা ভুট্টার তেল ও অন্যান্য পণ্য 
সম্প্রতি আলোচনায় এসেছে ভুট্টার তেল। বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউটের তথ্যমতে, বছরে দেশে উৎপাদিত ৫৪ লাখ টন ভুট্টা থেকে প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার টন ভুট্টার তেল আহরণ করা সম্ভব। যার বাজার মূল্য প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা। 
ইনস্টিটিউটের তথ্যে আরো জানা গেছে, বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ৫২টি দেশে ভুট্টা থেকে উৎকৃষ্টমানের ভোজ্যতেল উৎপাদিত ও ব্যবহৃত হয়। ভুট্টার তেল স্বাস্থ্যসম্মত ও পুষ্টিসমৃদ্ধ। এতে কোনো আমিষ বা শর্করা নেই, শতকরা ১০০ ভাগই চর্বি বিদ্যমান, যার পুষ্টিমান অন্যান্য তেলের চেয়ে তুলনামূলকভাবে বেশি। 
জানা গেছে, ভুট্টার তেলে বিদ্যমান সম্পৃক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড ও অসম্পৃক্ত ফ্যাটি অ্যাসিড সয়াবিন ও সূর্যমুখী তেলের সমপরিমাণ। ভুট্টার তেলে ভিটামিন ‘ই’ (টোকোফেরল)-এর পরিমাণ সূর্যমুখী তেলের চেয়ে বেশি। বিশেষত ভুট্টার তেলে ভিটামিন কে (১ দশমিক ৯ মাইক্রো গ্রাম) রয়েছে যেখানে সয়াবিন ও সূর্যমুখী তেলে তা অনুপস্থিত। এছাড়া সালাদ, বিস্কুট, চানাচুর, কেক, পাউরুটি, মাখন তৈরি করতে ভুট্টার তেল ব্যবহৃত হয়। অন্যদিকে ভুট্টা থেকে স্টার্চ, ইথানল, চিনি, সিরাপ এবং কান্ড, পাতা ও ডাঁটা থেকে কাগজ, কার্ড বা হার্ডবোর্ড, প্লাস্টিক পাইপসহ বহু শিল্পজাত দ্রব্য তৈরি করা যায়। ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট সেগুলো নিয়ে কাজ করছে।  
 

You May Also Like