করোনাকালে কোন খাবার ইমিউনিটি কমাতে পারে

  • Posted on 26-06-2021 14:07:17
  • National

আমিষ স্বাস্থ্য ডেস্ক ॥ 

গত দেড় বছর ধরে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে ইমিউনিটি গুরুত্ব বুঝতে পেরেছেন বিশ্ববাসী। সংক্রমণের হাত থেকে রেহাই পেতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আরও শক্তিশালী করতে হবে। এই কারণেই প্রত্যেকে চিকিৎসকের কথা মতো, নিজেদের সুস্থ রাখতে কী কী খাওয়া উচিত সেদিকে মন দিয়েছেন। তবে প্রতিদিনের খাবার তালিকায় এমন কিছু রয়েছে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা একটু একটু করে কমিয়ে দেয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, যে খাবারে পুষ্টির ঘাটতি রয়েছে, তা আপনার ইমিউনিটি বাড়ানোর পরিবর্তে এটিকে দুর্বল করে দেয়। সাধারণত লবন, কর্ন সিরাপ, কৃত্রিম মিষ্টিগুলোতে এমুলসিফায়ার ব্যবহার করা হয়। এসব খাবার অতিরিক্ত খেলে কেবল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল করে দেয় না পাশাপাশি নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়। 


জেনে নিন সেই খাবারগুলো কী কী। উচ্চ ফ্যাটযুক্ত খাবার : 

উচ্চ স্যাচুরেটেড ডায়েটে ইমিউনিটি কমে যায়। স্যাচুরেটেড ফ্যাটযুক্ত খাবারগুলো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং শ্বেত রক্ত কণিকার কার্যকারিতা কমিয়ে সংক্রমণের সংবেদনশীলতা বাড়িয়ে তুলতে পারে। মাইক্রোবায়োম জার্নালে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে উচ্চ-চর্বিযুক্ত খাবার অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়াগুলিকে পরিবর্তন করে এবং অন্ত্রের আস্তরণের ক্ষতি করতে পারে। 


অনাক্রম্যতা উপর ফাস্ট ফুডের প্রভাব : 

হোটেল রেস্তোরাঁগুলোতে পাওয়া ফাস্টফুড আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতাও প্রভাবিত করতে পারে। আপনি যদি এটি নিয়মিত খান তবে আপনি ফুলে যাচ্ছেন। হেলথ জার্নালে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, ফাস্ট ফুডে ফ্লেটলেট রয়েছে। যা দ্রুত অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া হ্রাস করতে পারে। এটি ইমিউন সিস্টেমকে ক্ষতিগ্রস্থ করে। 


লবণযুক্ত খাবার : 

প্যাকেটের চিপস, বেকারি আইটেম, এবং হিমশীতল নৈশভোজগুলোতে লবন থাকায়, লবনে রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে। প্রয়োজনের বেশি লবন না খাওয়াই ভাল বলে মত বিশেষজ্ঞদের। পাবমিড সেন্ট্রাল-এ প্রকাশিত ২০১৯ সালের সমীক্ষা অনুসারে লবন প্রতিরোধের কার্যকারিতা বাধা ছাড়াও পেটে ব্যাকটেরিয়াগুলিকে পরিবর্তন করতে পারে। যার কারণে আলসারেটিভ কোলাইটিস, রিউম্যাটয়েড আর্থ্রাইটিস এবং লুপাসের মতো অটোইমিউন রোগের আশঙ্কনা বেড়ে যায়। 


চাইনিজ খাবার ছেড়ে দিন : 

অনিচ্ছাকৃতভাবে বেশি চিনি আপনার প্রতিরোধ ক্ষমতা প্রভাবিত করে। বিশেষত ডায়াবিটিসযুক্ত ব্যক্তিদের জন্য বেশি চিনি সেবন করলে রক্তের সুগারের মাত্রা দীর্ঘকাল ধরে রাখতে পারে। নেচার কমিউনিকেশনস জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, উচ্চ রক্তে শর্করার মাত্রা অন্ত্রের ক্রিয়াকে হ্রাস করে, যা শরীরকে সংক্রমণের জন্য আরও ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলতে পারে। 


প্রক্রিয়াজাত গোশত খাওয়া এড়িয়ে চলুন : 

ভাজা খাবারগুলোর মতো, প্রক্রিয়াজাত গোশতে এজিইগুলোতে বেশি। ২০১৯ সালে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, উচ্চ তাপমাত্রায় বেশি প্রক্রিয়াজাত এবং রান্না করা গোশত খেলে কোলন ক্যান্সারের মতো বিপজ্জনক রোগ হতে পারে। কফি : কফি এবং চায়ে উচ্চ মাত্রার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে, অত্যধিক ক্যাফিন গ্রহণ ঘুমও কমিয়ে দেয়। কোনো পুষ্টিবিহীন ক্যাফিনেটযুক্ত সোডা বা কৃত্রিম মিষ্টি দিয়ে তৈরি এমন পানীয় এড়িয়ে চলা উচিত বলে মতামত বিশেষজ্ঞদের। 

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া, ইকনোমিক টাইমস। 
 

You May Also Like