দামুড়হুদায় দুম্বার খামার ৪টি শাবকের জন্ম

চুয়াডাঙ্গা থেকে সংবাদদাতা ॥ 

আরবের ধূসর মরুভূমির প্রাণী দুম্বা। মধ্যপ্রাচ্য ও মধ্য এশিয়ার শুষ্ক পাথুরে এলাকায় ছাগলজাতীয় প্রাণী দুম্বা পালন করা হয়। সেই দুম্বার খামার গড়ে তোলা হয়েছে সবুজ-শ্যামলিমায় ঘেরা চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায়। ছোট আকারের কৃত্রিম মরুভূমি তৈরি করে লালন-পালন করা হচ্ছে এসব দুম্বা। এলাকার আওহাওয়া দুম্বা পালন অনুকূল হওয়ায় দেখা দিয়েছে নতুন বাণিজ্যিক সম্ভাবনা। 
জানা গেছে, ঢাকার সাদেক অ্যাগ্রো থেকে আয়াশি ও রড মাসাই জাতের ছয়টি দুম্বা ক্রয় করে এনে ২০১৯ সালের নভেম্বর মাস থেকে লালন-পালন শুরু করে বেসরকারি সামাজিক উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও ওয়েভ ফাউন্ডেশন পরিচালিত) খামার স্টার ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড ক্যাপাসিটি-(সিডিসি)। চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদা মহাসড়কে কোষাঘাটা গ্রামে দৃষ্টিনন্দন পরিবেশে অবস্থিত এই খামার। এখানে দুম্বা ছাড়াও বিভিন্ন পশুপাখি লালন-পালন করা হয়। ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে ৮ লাখ ৭৫ হাজার টাকায় একটি মর্দা এবং পাঁচটি মাদি দুম্বা কিনে এনে এই খামারে লালনপালন করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে এখানে জন্ম নিয়েছে চারটি দুম্বা শাবক। সুস্থতার সাথে দিন দিন বেড়ে উঠছে এসব শাবক। সবুজ ঘাস, খড়, গম, ভুট্টা, ছোলা, গাছের পাতা খেয়েই প্রতিনিয়ত বেড়ে উঠছে এসব দুম্বা। 
এ খামার সহায়ক মনোয়ার হোসেন বলেন, দুম্বা মরুভূমি পছন্দ করে। তাই এখানে ছোট পরিসরে কৃত্রিম মরুভূমি তৈরি করে রাখা হয়েছে। এরই মধ্যে মাদি দুম্বাগুলা চারটি বাচ্চা দিয়েছে। সুস্থতার সাথে দিনদিন বেড়ে উঠছে তারা। বর্তমানে এখানে চারটি বাচ্চা দুম্বাসহ মোট দুম্বার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০টি। গমের ভুসি, চালের কুঁড়া, ভুট্টাভাঙা, সরিষার খৈল, চিটাগুড়, খড়, মাল্টিভিটামিনসহ বিভিন্ন খাদ্য একত্রে মিশিয়ে তাদের তিন বেলা খাবার দেয়া হয়। এ ছাড়াও সবুজ ঘাস, কাঁঠালপাতা তাদের পছন্দ। ছাগল ভেড়ার মতোই লালন-পালন করা হয় দুম্বা। 
দামুড়হুদা উপজলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা: মশিউর রহমান বলেন, দুম্বা ও ভেড়া কাছাকাছি প্রাণী। দুম্বা মরুর প্রাণী হলেও এটি একটি সহনশীল প্রাণী। দেখতে ভেড়ার মতো তবে পেছনের অংশ ভারী। ভেড়ার মতোই দ্রুত বংশবৃদ্ধি করে। মাংস উৎপাদনে ছাগল ভেড়ার চেয়ে বেশি কার্যকরী। অর্থনীতিক দিক দিয়ে ছাগল ভেড়ার চেয়ে দুম্বা পালন লাভজনক। কোরবানির সময় থাকে প্রচুর বাণিজ্যিক সম্ভাবনা। আমাদের এই পরিবেশে দুম্বা পালন তেমন কোনো সমস্যা হয় না, তাই এই দুম্বা পালন খাতে দেখা দিয়েছে নতুন সম্ভাবনা। 
 

You May Also Like