দাম বেশি ইলিশের বরিশালে

বরিশাল থেকে সংবাদদাতা ॥ 

সরষে ইলিশ, ভাপা ইলিশ, কুমড়া দিয়ে ইলিশের ঝাল, ইলিশের মাথা দিয়ে চালকুমড়া, আরো কত কী! বাজারে বেরিয়ে গত তিন দিনে বাড়িতে ইলিশের কী কী পদ রান্না হয়েছে তার ফিরিস্তি দিচ্ছিলেন বরিশালের কীর্তনখোলা তীরের প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী শফিকুর রহমান। এত পদ? এমন প্রশ্নের জবাবে বেজার মুখে এই প্রৌঢ় বলেছেন, ‘পদ না বলে ভাই বিপদ বলেন। তিন দিন ধরে ইলিশ খেতে খেতে হাঁপিয়ে উঠেছি। এখন সব খাবার থেকেই ইলিশের গন্ধ পাচ্ছি।’ ‘ইলিশ বন্যা’য় স্বজনদের আবদারও মেটাতে হচ্ছে বরিশালের বাসিন্দাদের। বিশেষ করে ঢাকার আত্মীয়দের ‘ইলিশ বায়না’ সামলাতে হচ্ছে। তাদের কারো চাই দেড় কেজি সাইজের, কারো আবার বাছবিচার নেই। ইলিশ হলেই হলো। কিন্তু মা ইলিশ নিষেধাজ্ঞা শেষে যা উঠছে, তার আকাশছোঁয়া দাম। বাজার পরিস্থিতি বলছে, ইলিশ শিকারের নিষেধাজ্ঞা নামলেও ইলিশের দর নামল না। আটকে রইল সেই হাজার টাকার ওপরেই। মধ্যবিত্তরা ভেবেছিল, মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে বাজারে প্রচুর ইলিশের দেখা মিলবে, নামবে দাম। ইলিশের আমদানি ঠিকই বেড়েছে, কিন্তু দর তেমন কমেনি। তাই মন ভালো নেই অনেক গৃহস্থেরই। কারণ বাজারে প্রচুর ইলিশ থাকলেও দাম শুনে বিরস মুখে অনেক ক্রেতাই পিছিয়ে আসছেন। সর্বত্রই আক্ষেপ ইলিশ কি এবার তাঁদের ধরাছোঁয়ার বাইরেই থেকে যাবে! বরিশালের কীর্তনখোলা নদীতীরের পোর্ট রোডে অবস্থান বেসরকারি একমাত্র মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের। ভোর থেকে ট্রলারসহ বিভিন্ন নৌযানে ইলিশ নিয়ে আসছেন নদীতীরের এই পাইকারি বাজারে। বিভিন্ন জায়গা থেকে এই বাজারে বিক্রির জন্য আনা হচ্ছে শত শত মণ ইলিশ। ক্রেতা-বিক্রেতাদের হাঁকডাকে বর্তমানে মুখরিত বরিশালের এই পাইকারি বাজার। যদিও ইলিশ ধরার ২২ দিন নিষেধাজ্ঞার সময় শত শত শ্রমিকের কর্মসংস্থানের এ জায়গাটি ছিল সুনসান। এখন সেই বাজারে পা ফেলার জায়গা নেই। মাছ আর মানুষে ভরে আছে। বরিশাল জেলা মৎস্য আড়তদার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অজিত কুমার দাস মনু জানান, নিষেধাজ্ঞার পর গত দুই দিনে প্রায় দুই হাজার মণ ইলিশ কেনাবেচা হয়েছে। শুধু গত বৃহস্পতিবার এক হাজার ৩০০ মণ বেচাকেনা হয়েছে। গত শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত প্রায় ৭০০ মণ ইলিশ বাজারে এসেছে। পাইকারি বাজারে ৬০০ থেকে ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের প্রতি কেজির পাইকারি দাম ৬৭৫ টাকা, এক কেজি ওজনের ইলিশ ৭২৫ টাকা, এক কেজির ওপরের ওজনের ইলিশের দাম ৮০০ টাকা এবং দেড় কেজি ওজনের ইলিশ প্রতি কেজি হাজার টাকা দরে বিকিকিনি হচ্ছে। যদিও মাছগুলো বরফের।

You May Also Like