পিছিয়ে থাকা ডেইরী শিল্পকে নিয়ে ভাবছেন ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেন চৌধুরী

সাক্ষাৎকারে মোহাম্মদ নুরুজ্জামান ॥ 

কথা হচ্ছিল ইবরাটারস ট্রেডিং কোম্পানীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও আস্থা ফিডের চেয়ারম্যান নবীন সফল ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেন চৌধুরীর সাথে তার উত্তরার অফিসে। পোল্ট্রি শিল্পে অতি প্রয়োজনিয় পন্য সামগ্রী আমদানী করে তিনি দেশের বিডার্স ফার্মস ও ফিড কোম্পানীর গুলোর কাছে মানসম্মত পন্য সরবরাহ করে যথেষ্ট প্রশংসা অর্জন করেছেন। আগামী দিনে ডেইরী শিল্পের জন্য ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে তিনি বেশ কিছু পরিকল্পনার বিষয় সাপ্তাহিক কৃষি ও আমিষের নিকট তুলে ধরেন। 


কৃষি ও আমিষ ॥ 

আসসালামুআলাইকুম। মোশাররফ ভাই কেমন আছেন ?  


মোশাররফ হোসেন ॥ 

ওয়ালেকুম-সালাম। জ্বি জামান ভাই ভালো আছি। আপনি কেমন আছেন ? 


কৃষি ও আমিষ ॥ 

জ্বি ভালো আছি। বহুদিন তো এ সেক্টরকে নিয়ে কাজ করছেন তা এখন কি ভাবছেন সেক্টরকে নিয়ে ? 


মোশাররফ হোসেন ॥ 

জ্বী। যাদের শ্রম এবং চেষ্টার মাধ্যমে তিলে তিলে করে আজ এই সেক্টরটি গড়ে উঠেছে। আমরা চাচ্ছি তাদেরকে গুরুত্ব দিয়ে তাদের জন্য কিছু একটা করতে । একচ্যুয়ালি তাদের জন্য একটি প্লান এন্ড প্রোগ্রাম আছে এবং সেই ক্ষেত্রে আমরা আলরেডি আমরা আমাদের প্লানিং পর্যায় আছি যাতে খামারে খামারে আমাদের সার্ভিসগুলো পৌছায় দিতে পারি। আমরা আচিরেই একটি ভেটেরিনারী টিম গঠন করব যারা ডেইরী খামার করে জিবিকা অর্জন করছেন তাদেরকে আমাদের প্রোডাক্ট এবং সার্ভিস দিয়ে দুধ উৎপাদন মূল্য যাতে কমিয়ে আনতে পারে সে বিষয় কাজ করবে আমাদের এই টিম। 


কৃষি ও আমিষ ॥ 

বিদেশ থেকে ডেইরি ইনডিগ্রেন্স বা খাদ্যপন্য আমদানির প্রয়োজনীয়তা আছে কি ? 

 

মোর্শারফ হোসেন ॥ 
অবশ্যই আছে। দেখুন ডেইরীতে ব্যবহৃত যত প্রকার দেশীয় খাদ্যপন্য আছে এগুলো সারাবছর উচ্চমূল্যে বিক্রয় হয়ে আসছে। যেমন: গমের ভূষি, খৈল, বিভিন্ন ডালের গুড়া ইত্যাদি ইত্যাদি। এসব পন্য আমদানি করে যদি বাজারজাত করা যায় তাহলে অটোমেটিকলি কিন্তু বাজারে এসব খাদ্যমূল্য একটি স্থিতিশিল অবস্থায় আসবে। এতে করে অবশ্যই অবশ্যই খামারীদের খাদ্যমূল্যের দাম কমে আসবে এতে কোনো সন্দেহ নেই। জামান ভাই, দেখুন আমাদের এতবড় একটি পোল্ট্রি সেক্টর, এতবড় একটি এ্যাকোয়া সেক্টর কিন্তু দেশীয় সকল পন্যের উপর নির্ভর করা সম্ভবপর হতো না। আমাদের দেশীয় পন্যের পাশাপাশি বাহির থেকে যে সব অত্যাবশ্যাকিয় পন্যগুলো আমদানী করছি বলেই পোল্ট্রি শিল্প আজ এই পর্যায়ে এসেছে। ঠিক একইভাবে আমরা যদি ডেইরী ইনডিগ্রেন্সগুলো আমদানি করে দেশিয় পন্যের পাশাপাশি দিতে পারি তাহলে এর একটি কমপেয়ারিটিভ মূল্য পারে খামারীরা। 


কৃষি ও আমিষ ॥ 

আপনারা কি ডেইরীর খাদ্যপন্য আমদানী শুরু করেছেন ?  


মোশাররফ হোসেন ॥ 

আমরা ডেইরী ইনডিগ্রেন্টসগুলো অলরেডি আমদানি শুরু করেছি। আমরা গতবছর গমের ভূষি আমদানী করে দেশে বাজার নিয়ন্ত্রন করতে পেরেছিলাম। এখন আমরা এই গরু হৃষ্টপৃষ্টকরণ সিজনের জন্য আবারো যেমন গমের ভূষি, সান ফ্লোয়ার কেক, কটন সিল্ক কেক, গ্রাইন নাট কেক মিল ইত্যাদি এই পন্যগুলো আমদানির মাথায় রেখেছি। আমরা আশাকরি এ বছরের কুরবানীর আগ পর্যন্ত মাংস উৎপাদনের সে ক্ষেত্রে আমরা খরচ কমানোর জন্য একটি বড় ভূমিকা রাখব ইনশাআল্লাহ। 


কৃষি ও আমিষ ॥ 

মোশাররফ ভাই আমরা জানি যে, আপনি নতুন একটি ফিডমিল তৈরি করেছেন এবং এই ফিডমিলের মাধ্যমে আপনার ব্যবসায় নতুন একটি মাত্রা যোগ হলো এবং যতদুর জানি আপনার এই ফিডমিলের নাম আস্থা। তো আপনার আস্থা ফিড সম্পর্ক কিছু বলেন ? 


মোশাররফ হোসেন ॥ 

আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ জামান ভাই। জ্বি আমরা অলরেডি ব্রয়লার, লেয়ার ও সোনালী এই ফিড দিয়ে বাজারজাত শুরু করেছি। আমাদের পন্যের ব্রান্ড এর নাম হচ্ছে ‘আস্থা’। খামারীদের আস্থা অর্জনের লক্ষ্যেই আমরা এই ফিডের নাম দিয়েছি আস্থা। আমাদের এই ফিড দিয়ে যাতে খামারীরা উপকৃত হয় এবং কাংক্ষিত মুনাফা অর্জন করতে পারে। এই ধরনের ফিডে অপটিমাম নিউট্রেশন বা অপটিমাম ল্যাবেল পর্যন্ত পায় সেইক্ষেত্রে লক্ষ রেখে আমাদের ফিডের কার্যক্রম ও বাজারজাত চালু রেখেছি। আপনার জানেন পোল্ট্রি ফিড একটি ল্যাবরোটরি। এরকম একটি সায়েন্টিফিক ব্যবসা আর কোনা ব্যবসায় কিন্ত নেই। আপনি আজ যা খাওয়াবেন কালই বুঝতে পারবেন আপনি ভালো খাওয়ালেন না খারাপ খাওয়ালেন। আমরা আস্থা ফিডের পাশাপাশি খামারীদের লেয়ার এবং ব্রয়লার পালনে আমাদের ভেটেরিনারিয়ান টিম সার্ভিস প্রদান করবে। 


কৃষি ও আমিষ ॥

 আমাদের এই সেক্টরকে সরকার কতটুক সহযোগীতা করছে বলে আপনি মনে করেন। 

মোর্শারফ হোসেন ॥ 

আমি অবশ্যই সরকারকে ধন্যবাদ দিতে চাই এই কারেণ আপনারা জানেন যে আমরা একটি ক্রান্তিলগ্ন পার করছি এই কোভিট-১৯ নিয়ে অথাৎ কোরোনা প্যান্ডেমিক। এই কোরোনা যখন আমাদের সেক্টরে আতংকের মধ্যে ছিল। তখন কিন্তু আমাদের মন্ত্রনালয় খামারীদের ব্রয়লার এবং ডিম বিভিন্ন এলাকায় বাজারজাত করেছে। এই ধরনের উদ্যোগ সরকারের অবশ্যই একটি প্রসংসনীয় উদ্যোগ। 
বর্তমানে আমাদের মন্ত্রী এবং সচীব মহোদয় অবশ্যই একটিভ ও উদ্যোগি ওনারা যথাসাধ্য এই সেক্টরের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। সরকারের প্রনোদনা আমরা পেয়েছি। সব ধরনের সহযোগিতা প্রদান করছে সরকার। আমাদের এ ধরনের ডায়নামিক মন্ত্রী এবং সচিব ও মহাপরিচালক একই সঙ্গে আমরা পূর্বে পেয়েছি বলে মনে হয় না। আমি তাদের ধন্যবাদসহ সু-স্বাস্থ  কামনা করছি। 


কৃষি ও আমিষ ॥ 

সাপ্তাহিক কৃষি ও আমিষ সম্পর্কে কিছু বলুন ? 


মোশাররফ হোসেন ॥ 

ভাই সত্যি কথা, আমি মনে করি সাপ্তাহিক কৃষি ও আমিষ একটি দুর্দান্ত খবরের কাগজ। আমাদের দেশে এ সেক্টরে পেপার বলতে আমি কৃষি ও আমিষকেই চিনি এবং জানি। আমি জানি একটি পত্রিকা চালাতে ভালোমন্দ সবকিছুই তুলে ধরতে হয়। আমি দেখেছি সেক্ষেত্রে অত্যন্ত ফেয়ারলেসভাবে অকুতভয় যে কোনো বিষয় নেগেটিভ ও পজিটিভ খবর ছাপাতে দ্বিধারোধ করে না কৃষি ও আমিষ। আমি ধন্যবাদ জানাই আপনাদের এবং আমি আশা করব প্রান্তিক খামারিরা আপনার পত্রিকার মাধ্যমে যাতে আরো নতুন তথ্য ও জানা অজানা খবর জানাতে পারে সে বিষয় আরো এগিয়ে যাবে। অনেক অনেক ধন্যবাদ ও অভিনন্দন কৃষি ও আমিষকে। 


কৃষি ও আমিষ ॥ 

ধন্যবাদ মোশাররফ ভাই আপনাকে। আপনার ব্যবসার পরিধির চিন্তভাবনা এবং আপনি দেশের খামারীদের বিশেষ করে ডেইরি শিল্প নিয়ে পরিকল্পনা করছেন, তাদের খাদ্যমূল্য কমিয়ে আনার জন্য তাদের দোড়গড়ায় পৌছেবেন এ জন্য আমাদের সাপ্তাহিক কৃষি ও আমিষের পক্ষ হতে আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ ও অভিনন্দন। 


মোশাররফ হোসেন ॥ 

আপনাকেও ধন্যবাদ নুরুজ্জামান ভাই। 
 

You May Also Like