কৃষি খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি ২ হাজার ৯৬০ কোটি টাকা

ঢাকা অফিস ॥

 করোনাভাইরাসের প্রভাবে দেশের কৃষি খাত বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়েছে। খাদ্য নিরাপত্তা জোগানের বৃহত্তম এ খাত রক্ষায় আগামী বাজেটে অর্থ বরাদ্দ বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে কৃষি খাতে ২৯ হাজার ৯৮৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে, যা মোট বাজেটের ৫ দশমিক ৩ শতাংশ। চলতি বাজেটে এ খাতে বরাদ্দ ছিল ২৭ হাজার ২৩ কোটি টাকা। যার পরিমাণ ছিল মোট বাজেটের ৫ দশমিক ৪ শতাংশ। এখন বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে দুই হাজার ৯৬০ কোটি টাকা। গত ১০ জুন বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের প্রস্তাবিত বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ প্রস্তাব করেন। 
প্রস্তাবে বলা হয়েছে, করোনা-উত্তর বিশ্বে দুর্ভিক্ষের যে পূর্বাভাস রয়েছে, তার পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের বিশাল জনগোষ্ঠীর খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তাসহ কৃষি খাতের সাথে জড়িত কৃষক, কৃষি শ্রমিক ও সংশ্লিষ্টদের জীবন ও জীবিকা নিশ্চিত করাই আমাদের কৃষি খাতের অন্যতম চ্যালেঞ্জ। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন, করোনা-পরবর্তী পরিস্থিতিতে কোনোভাবেই যাতে খাদ্য সঙ্কট সৃষ্টি না হয়। সে জন্য এক ইঞ্চি আবাদি জমিও ফেলে রাখা যাবে না। 
করোনার প্রভাব মোকাবেলায় বিগত বছরগুলোর মতো কৃষি খাতে ভর্তুকি, সার- বীজসহ অন্যান্য কৃষি উপকরণ প্রণোদনা ও সহায়তা কার্ড, কৃষি পুনর্বাসন সহায়তা, স্বল্প সুদ ও সহজ শর্তে বিশেষ কৃষি ঋণ সুবিধা অব্যাহত রাখা হয়েছে। এ ছাড়া ফসল কর্তন কার্যক্রমে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি কেনায় কৃষককে ভর্তুকি দেয়া অব্যাহত থাকবে। বর্তমানে কৃষি উপকরণ সহায়তা কার্ডধারী কৃষকদের সংখ্যা দুই কোটি আট লাখ ১৩ হাজার ৪৭৭ জন। বাজেটে কৃষি খাতে ভর্তুকি পরিমাণ বাড়িয়ে ৯ হাজার ৫০০ কোটি টাকা করা হয়েছে। মন্ত্রী বলেন, কৃষি যান্ত্রিকীকরণে আমরা ২০০ কোটি টাকা প্রণোদনা দিয়েছি। বাজেটে কৃষি খামার যান্ত্রিকীকরণে তিন হাজার ১৯৮ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। কৃষকের ধান-চালের ন্যায্যমূল্যপ্রাপ্তি ও বাজারে চালের দাম স্থিতিশীল রাখতে ২০২০-২১ অর্থবছরে ধান-চালের সরকারি সংগ্রহ ও বিতরণ লক্ষ্যমাত্রা আরো দুই লাখ টন বাড়ানো হয়েছে। কৃষকের ঋণপ্রাপ্তি সহজ করার লক্ষ্যে পাঁচ হাজার কোটি টাকার একটি কৃষি রিফাইন্যান্স স্কিম গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া নিম্ন আয়ের পেশাজীবী কৃষক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য তিন হাজার কোটি টাকা পুনঃঅর্থায়ন স্কিম ঘোষণা করা হয়েছে। বিগত বছরগুলোর মতো আমদানি খরচ যাই হোক না কেন, আগামী অর্থবছরেও রাসায়নিক সারের বিক্রয়মূল্য অপরিবর্তিত রাখা হবে ও কৃষি প্রণোদনা অব্যাহত থাকবে। 
 

You May Also Like