‘ব্লু-ইকোনমির বিকাশে একসঙ্গে কাজ করবে বাংলাদেশ ও ভিয়েতনাম’ - মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

ঢাকা থেকে সংবাদদাতা ॥

 ব্লু-ইকোনমির বিকাশে বাংলাদেশ ও ভিয়েতনাম একসঙ্গে কাজ করবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। গত রোববার সচিবালয়ে মৎস্য প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীর দপ্তরে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত ফাম ভিয়েত চিয়েন সাাৎ করতে এলে মন্ত্রী একথা জানান। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে সচিব রওনক মাহমুদ, অতিরিক্ত সচিব কাজী ওয়াছি উদ্দিন, যুগ্মসচিব মো. তৌফিকুল আরিফ, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবদুল জব্বার শিকদার এবং বাংলাদেশ-ভিয়েতনাম চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি এস এম রহমান এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এ সময় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী বলেন, দ্বিপীয় স্বার্থ রা করে সব দেশের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কোনো দেশের সঙ্গে শত্র“তা নয়- এটি বাংলাদেশের বৈদেশিক নীতি। বিদেশি বিনিয়োগ স্বাগত জানাতে বাংলাদেশ সব সময় প্রস্তুত। ভিয়েতনামের সঙ্গে দ্বিপীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে কাজ করতে বাংলাদেশ প্রস্তুত আছে। এটা হতে পারে দুইটি দেশের মধ্যে বিভিন্ন পরিকল্পনা, প্রশিণ, আমদানি-রপ্তানি, মানবসম্পদ ও দতা উন্নয়ন এবং অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমে। প্রাথমিকভাবে যৌথ ওয়ার্কিং গ্র“প তৈরি করে বাংলাদেশ ও ভিয়েতনামের মধ্যকার সম্ভাবনাময় খাতগুলো চিহ্নিত করা যেতে পারে। এর মধ্যে ব্লু-ইকোনমির সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে ভিয়েতনামে সামুুদ্রিক মৎস্য রপ্তানি করতে পারি। মাংস রপ্তানিতেও সম্ভাবনা রয়েছে। দুই দেশ যৌথাভাবে এ ব্যাপারে কাজ করতে পারে। এ সময় ভিয়েতনামের রাষ্ট্রদূত বলেন, ভিয়েতনামের কৃষি ও পল্লি উন্নয়ন মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সমঝোতা স্মারক স্বারের মাধ্যমে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে বিভিন্ন ধরনের তথ্য ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ে একসঙ্গে কাজ করতে পারে। তথ্য বিনিময়ের মাধ্যমে দুটি দেশের সম্পর্ক আরও গভীর হতে পারে। বিশেষ করে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতে ভিয়েতনামের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। 

You May Also Like