করোনায় কুয়েতে সবজি রপ্তানি বন্ধ

ঢাকা থেকে সংবাদদাতা ॥ 

বাংলাদেশের কোনো মানুষের এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসের আক্রান্ত হওয়ার কোনো খবর পাওয়া যায়নি, তুবও পণ্য আমদানি-রপ্তানিতে করোনাভাইরাসের নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। গত শনিবার থেকে কুয়েতে বাংলাদেশি সবজি রপ্তানি বন্ধ হয়ে গেল। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কুয়েতের  সিভিল এভিয়েশন বিভাগ করোনাভাইরাসের কারণে গত শুক্রবার সাতটি দেশের সঙ্গে সরাসরি ফাইট সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার নির্দেশনা জারি করেছে। ফলে গত শনিবার বাংলাদেশ, ফিলিপাইন, ভারত, শ্রীলঙ্কা, সিরিয়া, লেবানন ও মিসর থেকে ধম্যপ্রাচ্যের এই দেশটিতে পূর্বনির্ধারিত ফাইট বাতিল করা শুরু করে বিভিন্ন এয়ারলাইনস। আর তাতেই বাংলাদেশের সবজি রপ্তানি বন্ধ হয়ে যায়। কারণ যাত্রীবাহী উড়োজাহাজে করেই মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হয় বাংলাদেশের সবজি। কুয়েতের ফাইট বাতিল হওয়ার গত ৭ মার্চ মনসুর জেনারেল ট্রেডিং কোম্পানির সাড়ে চার টন সবজি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আটকে গেছে। সেই সবজির রপ্তানি মূল্য ১০-১২ হাজার মার্কিন ডলার। প্রতিষ্ঠাটি বিমানবন্দর থেকে সবজি ফেরত আনতে বাধ্য হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে গত ৭ মার্চ মনসুর জেনারেল ট্রেডিংয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মনসুর বলেন, এই সবজি স্থানীয় বাজার বিক্রি করলে রপ্তানি মূল্যের ২৫ শতাংশ অর্থ মিলতে পারে। তাতে মোটা অঙ্কের লোকসান গুনতে হবে। কচু, জালি, পেঁপে, বেগুন, মরিচ, শিম, আলু, ঝিঙেসহ ২০ ধরনের পাঁচ টন সবজি কুয়েতে রপ্তানির আদেশ পেয়েছিল আরেক প্রতিষ্ঠান মরিশন এন্টারপ্রাইজ। আজ রোববার সেসব সবজি মোড়কীকরণের কাজ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কুয়েতের ফাইট হঠাৎ বন্ধ হয়ে হওয়ায় পুরো রপ্তানি প্রক্রিয়াটি স্থগিত হয়ে গেছে। মরিশন এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো. এনায়েত হোসেন বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশ থেকে কুয়েতের ফাইট বন্ধ। বিষয়টি জানার পরপরই আমরা সবজি রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছি। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যানুযায়ী ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশ থেকে ৯ কোটি ৯৬ লাখ ডলারের সবজি রপ্তানি হয়েছে। এর মধ্যে কুয়েতে রপ্তানি হয়েছে ১ কোটি ডলারের সবজি। আর চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রথম সাত মাসে (জুলাই-জানুয়ারি) ৬১ লাখ ডলারের সবজি রপ্তানি হয়েছে। গত অর্থবছরে একই সময়ে রপ্তানি হয়েছিল ৬৭ লাখ ডলারের সবজি। জানতে চাইলে বাংলাদেশ ফ্রুটস ভেজিটেবল অ্যান্ড চাইলে অ্যালাইড প্রোডাক্টস এক্সপোর্টার্স অ্যাসেসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ মনসুরত বলেন, কুয়েত সাত দিনের জন্য সরাসরি ফাইট বন্ধ করেছে। নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা আরও বাড়লে সবজি রপ্তানিতে বড় ধরনের প্রভাব পড়বে।

You May Also Like